ঢাকা , শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাঁচ শতাধিক শিক্ষক নিয়ে ’মুজিব’ সিনেমাটি দেখেছেন ঢাবির নবনিযুক্ত ভিসি

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৯:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০২৩
  • 272

অনলাইন ডেস্ক :  পাঁচ শতাধিক শিক্ষক নিয়ে ‘মুজিব’ সিনেমাটি দেখেছেন ঢাবির নবনিযুক্ত ভিসি ড. অধ্যাপক মাকসুদ কামাল। ১৩ অক্টোবর সারাদেশে মুক্তি পেয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিক ‘মুজিব: একটি জাতির রূপকার’।মাকসুদ কামাল বলেন, এই প্রজন্মের যারা আছে তারা বঙ্গবন্ধুকে জানতে চায়। বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু অর্থ আমাদের জাতিসত্তা। মুজিব একটি জাতির রূপকার, এই সিনেমার মধ্য দিয়ে বস্তুত অর্থে বঙ্গবন্ধু যে একটি জাতির আর্কিটেক্ট, সেটা কীভাবে একটি জাতির স্বপ্নকে বাস্তব রুপ দিয়েছেন, কীভাবে আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন তা এই সিনেমায় ফুটে উঠেছে। 

তিনি আরো বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শতাধিক শিক্ষক এসেছেন এবং তাদের পরিবারসহ এসেছে,  সন্তানরা এসেছে। এই নতুন প্রজন্মের যারা আছে তাদেরকে নিয়ে আসার অর্থই হলো- জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে জানা  এবং তার মধ্য দিয়ে দেশপ্রেম সৃষ্টি করা। 

ঢাবির নতুন ভিসি বলেন, এই ছবিটি হলো- একটি জাতির প্রেরণা, এই ছবিটি হলো- একটি জাতির প্রত্যয়। মুজিব একটি জাতির রূপকার সিনেমা দেখার মধ্য দিয়ে আমাদের মধ্যে প্রতিজ্ঞা সৃষ্টি হবে, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে স্বপ্ন নিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছিল তা বাস্তবে রূপ দেয়ার। আর এ কারণেই আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৫০০ শিক্ষক এখানে এসেছি। আর যারা আসে নাই তারাও যেন ধারাবাহিকভাবে সিনেমাটা দেখতে আসে সেজন্য অনুপ্রাণিত করব। 

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল : সতর্কতায় উপকূলে মাইকিং করেছে কোস্ট গার্ডের সদস্যরা

পাঁচ শতাধিক শিক্ষক নিয়ে ’মুজিব’ সিনেমাটি দেখেছেন ঢাবির নবনিযুক্ত ভিসি

আপডেট সময় ০৯:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক :  পাঁচ শতাধিক শিক্ষক নিয়ে ‘মুজিব’ সিনেমাটি দেখেছেন ঢাবির নবনিযুক্ত ভিসি ড. অধ্যাপক মাকসুদ কামাল। ১৩ অক্টোবর সারাদেশে মুক্তি পেয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিক ‘মুজিব: একটি জাতির রূপকার’।মাকসুদ কামাল বলেন, এই প্রজন্মের যারা আছে তারা বঙ্গবন্ধুকে জানতে চায়। বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু অর্থ আমাদের জাতিসত্তা। মুজিব একটি জাতির রূপকার, এই সিনেমার মধ্য দিয়ে বস্তুত অর্থে বঙ্গবন্ধু যে একটি জাতির আর্কিটেক্ট, সেটা কীভাবে একটি জাতির স্বপ্নকে বাস্তব রুপ দিয়েছেন, কীভাবে আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন তা এই সিনেমায় ফুটে উঠেছে। 

তিনি আরো বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শতাধিক শিক্ষক এসেছেন এবং তাদের পরিবারসহ এসেছে,  সন্তানরা এসেছে। এই নতুন প্রজন্মের যারা আছে তাদেরকে নিয়ে আসার অর্থই হলো- জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে জানা  এবং তার মধ্য দিয়ে দেশপ্রেম সৃষ্টি করা। 

ঢাবির নতুন ভিসি বলেন, এই ছবিটি হলো- একটি জাতির প্রেরণা, এই ছবিটি হলো- একটি জাতির প্রত্যয়। মুজিব একটি জাতির রূপকার সিনেমা দেখার মধ্য দিয়ে আমাদের মধ্যে প্রতিজ্ঞা সৃষ্টি হবে, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে স্বপ্ন নিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছিল তা বাস্তবে রূপ দেয়ার। আর এ কারণেই আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৫০০ শিক্ষক এখানে এসেছি। আর যারা আসে নাই তারাও যেন ধারাবাহিকভাবে সিনেমাটা দেখতে আসে সেজন্য অনুপ্রাণিত করব।