ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজ আইএমএফের বৈঠকে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির সিদ্ধান্ত

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৪:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২৩
  • 29

অনলাইন ডেস্ক : মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) বোর্ড সভা ওয়াশিংটনে অবস্থিত আইএমএফ কার্যালয়ে হওয়ার কথা রয়েছে। সংস্থাটির বোর্ড সভায় আইএমএফ ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির ছাড়ের প্রস্তাব উঠবে আজ। 

গত ৩০ জানুয়ারি আইএমএফ বোর্ড এই ঋণ অনুমোদন দেয়। গত ২ ফেব্রুয়ারি প্রথম কিস্তিতে বাংলাদেশ পেয়েছে ৪৪ কোটি ৭৮ লাখ ডলার। বাকি অর্থ পাঁচ দফায় পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত অক্টোবরে আইএমএফের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে এসে ঋণ কর্মসূচি পর্যালোচনার পর আইএমএফ বোর্ডের কাছে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির প্রস্তাব উপস্থাপন করে। দুটি শর্ত পূরণ না হলেও বাংলাদেশের জন্য ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি হিসেবে প্রায় ৬৮ কোটি ডলারের অনুমোদন পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংস্থাটির এই ঋণ কর্মসূচির আওতায় দেওয়া শর্ত অনুযায়ী, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ও রাজস্ব আয় অর্জন করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে সম্প্রতি ঢাকা সফর করে যাওয়া সংস্থাটির মিশন শর্তে পিছিয়ে থাকা কিছু বিষয়ে সহনীয় দেখে দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়ের ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশকে দেওয়া আইএমএফ’র প্যাকেজে দুই ধরনের ঋণ রয়েছে। এর মধ্যে বর্ধিত ঋণ সহায়তা বা বর্ধিত তহবিল (ইসিএফ অ্যান্ড ইএফএফ) থেকে পাওয়া যাবে ৩৩০ কোটি ডলার। রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটির (আরএসএফ) আওতায় পাওয়া যাবে ১৪০ কোটি ডলার। ২০২৬ সাল পর্যন্ত এ ঋণ কর্মসূচি চলাকালীন বাংলাদেশকে বিভিন্ন ধরনের শর্ত পরিপালন ও সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।

এদিকে চলতি বছরের প্রথমার্ধে আইএমএফ ছয়টি পরিমাণগত লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছিল। পূরণ করতে না পারা শর্তগুলোর একটি ছিল জুনের শেষে ন্যূনতম ২৪ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ বজায় রাখা। জ্বালানি, সার ও খাদ্যদ্রব্য আমদানির জন্য রিজার্ভ থেকে খরচ করতে হয়েছিল বলে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় প্রায় তিন বিলিয়ন ডলার কমেছে। এই সংকট কাটাতে ইতিমধ্যে কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে তাতে একটা সুফল বয়ে আনতে পারেনি আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। এখনো রিজার্ভ থেকে ধারাবাহিক রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করতে হচ্ছে। এই সংকটের মধ্যে বিদেশি ঋণকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

বাংলাদেশে আবারো আশ্রয় নিল ২৪ জন এখন পর্যন্ত সর্বমোট ২৮৫ জন সীমান্তরক্ষী বিজিপি সদস্য অবস্থান করছে

আজ আইএমএফের বৈঠকে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির সিদ্ধান্ত

আপডেট সময় ০৪:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক : মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) বোর্ড সভা ওয়াশিংটনে অবস্থিত আইএমএফ কার্যালয়ে হওয়ার কথা রয়েছে। সংস্থাটির বোর্ড সভায় আইএমএফ ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির ছাড়ের প্রস্তাব উঠবে আজ। 

গত ৩০ জানুয়ারি আইএমএফ বোর্ড এই ঋণ অনুমোদন দেয়। গত ২ ফেব্রুয়ারি প্রথম কিস্তিতে বাংলাদেশ পেয়েছে ৪৪ কোটি ৭৮ লাখ ডলার। বাকি অর্থ পাঁচ দফায় পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত অক্টোবরে আইএমএফের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে এসে ঋণ কর্মসূচি পর্যালোচনার পর আইএমএফ বোর্ডের কাছে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির প্রস্তাব উপস্থাপন করে। দুটি শর্ত পূরণ না হলেও বাংলাদেশের জন্য ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি হিসেবে প্রায় ৬৮ কোটি ডলারের অনুমোদন পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংস্থাটির এই ঋণ কর্মসূচির আওতায় দেওয়া শর্ত অনুযায়ী, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ও রাজস্ব আয় অর্জন করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে সম্প্রতি ঢাকা সফর করে যাওয়া সংস্থাটির মিশন শর্তে পিছিয়ে থাকা কিছু বিষয়ে সহনীয় দেখে দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়ের ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশকে দেওয়া আইএমএফ’র প্যাকেজে দুই ধরনের ঋণ রয়েছে। এর মধ্যে বর্ধিত ঋণ সহায়তা বা বর্ধিত তহবিল (ইসিএফ অ্যান্ড ইএফএফ) থেকে পাওয়া যাবে ৩৩০ কোটি ডলার। রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটির (আরএসএফ) আওতায় পাওয়া যাবে ১৪০ কোটি ডলার। ২০২৬ সাল পর্যন্ত এ ঋণ কর্মসূচি চলাকালীন বাংলাদেশকে বিভিন্ন ধরনের শর্ত পরিপালন ও সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।

এদিকে চলতি বছরের প্রথমার্ধে আইএমএফ ছয়টি পরিমাণগত লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছিল। পূরণ করতে না পারা শর্তগুলোর একটি ছিল জুনের শেষে ন্যূনতম ২৪ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ বজায় রাখা। জ্বালানি, সার ও খাদ্যদ্রব্য আমদানির জন্য রিজার্ভ থেকে খরচ করতে হয়েছিল বলে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় প্রায় তিন বিলিয়ন ডলার কমেছে। এই সংকট কাটাতে ইতিমধ্যে কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে তাতে একটা সুফল বয়ে আনতে পারেনি আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। এখনো রিজার্ভ থেকে ধারাবাহিক রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করতে হচ্ছে। এই সংকটের মধ্যে বিদেশি ঋণকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে বাংলাদেশ ব্যাংক।