ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও এমপিরা কী কী সুবিধা পেয়ে থাকেন : তা জেনে নেওয়া যাক তারা কী পান

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৬:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৪
  • 41

এস এম বাপ্পী :  দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পেয়ে টানা চতুর্থবারের মতো সরকার গঠন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার তার নেতৃত্বে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। এর আগে গতকাল (বুধবার) শপথ নেন জাতীয় সংসদের সদস্যরা।  মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যরা (এমপি) কী কী সুবিধা পেয়ে থাকেন, তা জানার আগ্রহ অনেকের। জেনে নেওয়া যাক তারা কী কী সুবিধা পান?

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী এমপিদের বেতন : ‘দ্য মিনিস্টার্স, মিনিস্টার্স অব স্টেট অ্যান্ড ডেপুটি মিনিস্টার্স (রেমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) অ্যাক্ট’- অনুযায়ী, একজন মন্ত্রীর মাসিক বেতন ১ লাখ ৫ হাজার টাকা। প্রতিমন্ত্রী পান ৯২ হাজার টাকা, উপমন্ত্রী পান ৮৬ হাজার ৫০০ টাকা এবং একজন সংসদ সদস্য পান ৫৫ হাজার টাকা। 

অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা : দায়িত্ব পাওয়ার পর একজন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী সরকারি বাসা পান। মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের বাসভবনে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি ও টেলিফোন ব্যয় যা আসবে- তার পুরোটাই সরকার বহন করে। তবে অনেকেই সরকারি বাসায় থাকতে চান না। নিজের বাড়ি অথবা ভাড়া বাসায় থাকতে চান। সেক্ষেত্রে সরকার থেকে একজন মন্ত্রী মাসিক ৮০ হাজার টাকা করে ভাড়া পাবেন। আর প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী পাবেন মাসিক ৭০ হাজার টাকা। 

সরকারি বাড়ি সাজসজ্জা করতে একজন মন্ত্রী প্রতিবছর পাঁচ লাখ টাকা এবং প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা পাবেন ৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া নিজ বাড়ি বা ভাড়া বাড়িতে বসবাস করলে সেটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বছরে তিন মাসের বাড়ি ভাড়ার সমপরিমাণ টাকা পাবেন তারা।

অন্যদিকে এমপিরাও সরকারের কাছ থেকে প্লট পেয়ে থাকেন। বাসায় টেলিফোন ভাতা বাবদ প্রতি মাসে ৭ হাজার ৮০০ টাকা দেওয়া হয় একজন এমপিকে। প্রতি মাসে লন্ড্রি ভাতা দেড় হাজার টাকা, মাসিক ক্রোকারিজ, টয়লেট্রিজ কেনার জন্য ভাতা ৬ হাজার টাকা দেওয়া হয় একজন সংসদ সদস্যকে। এ ছাড়া নির্বাচনি এলাকায় অফিস খরচের জন্য প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা পান।

দায়িত্ব পাওয়ার পর মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা সরকারি খরচে একটি করে গাড়ি সুবিধা পান। আর সংসদ সদস্য হওয়ার পর শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি সুবিধা পেয়ে থাকেন তারা।

পরিবহণ ভাতা বাবদ একজন সংসদ সদস্য মাসে ৭০ হাজার টাকা পান। এ ছাড়া তার নির্বাচনি এলাকার যাওয়া–আসার ভাতা হিসেবে প্রতি মাসে পান ১২ হাজার ৫০০ টাকা। জ্বালানি বাবদ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী দৈনিক ১৮ লিটার জ্বালানি তেলের সমপরিমাণ টাকা পান।

আপ্যায়ন ভাতা বাবদ একজন মন্ত্রী মাসে ১০ হাজার টাকা পান। প্রতিমন্ত্রী সাড়ে ৭ হাজার টাকা এবং উপমন্ত্রী ৫ হাজার টাকা পান। আর একজন সংসদ সদস্য প্রতি মাসে আপ্যায়ন ভাতা পান পাঁচ হাজার টাকা।

মন্ত্রিসভার সদস্যরা অসুস্থ হলে তার পুরো চিকিৎসা খরচ বহন করে সরকার। আর একজন প্রথম শ্রেণির সরকারি কর্মকর্তা যে চিকিৎসা খরচ পেয়ে থাকেন, একজন সংসদ সদস্য এবং তার পরিবার সমান খরচ পান। 

নিজ এলাকার মসজিদ-মন্দির উন্নয়নসহ এলাকার মানুষের দাতব্য কাজে একজন মন্ত্রী বছরে পান ১০ লাখ টাকা। আর প্রতিমন্ত্রী পান সাড়ে ৭ লাখ ও উপমন্ত্রী পান ৫ লাখ টাকা। এ ছাড়া একজন সংসদ সদস্য বছরে পান ৫ লাখ টাকা। এগুলো ছাড়াও আরও নানা সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন তারা। 

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন : ‘শুভ নববর্ষ’ ১৪৩১ : নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও এমপিরা কী কী সুবিধা পেয়ে থাকেন : তা জেনে নেওয়া যাক তারা কী পান

আপডেট সময় ০৬:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৪

এস এম বাপ্পী :  দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পেয়ে টানা চতুর্থবারের মতো সরকার গঠন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার তার নেতৃত্বে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। এর আগে গতকাল (বুধবার) শপথ নেন জাতীয় সংসদের সদস্যরা।  মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যরা (এমপি) কী কী সুবিধা পেয়ে থাকেন, তা জানার আগ্রহ অনেকের। জেনে নেওয়া যাক তারা কী কী সুবিধা পান?

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী এমপিদের বেতন : ‘দ্য মিনিস্টার্স, মিনিস্টার্স অব স্টেট অ্যান্ড ডেপুটি মিনিস্টার্স (রেমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) অ্যাক্ট’- অনুযায়ী, একজন মন্ত্রীর মাসিক বেতন ১ লাখ ৫ হাজার টাকা। প্রতিমন্ত্রী পান ৯২ হাজার টাকা, উপমন্ত্রী পান ৮৬ হাজার ৫০০ টাকা এবং একজন সংসদ সদস্য পান ৫৫ হাজার টাকা। 

অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা : দায়িত্ব পাওয়ার পর একজন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী সরকারি বাসা পান। মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের বাসভবনে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি ও টেলিফোন ব্যয় যা আসবে- তার পুরোটাই সরকার বহন করে। তবে অনেকেই সরকারি বাসায় থাকতে চান না। নিজের বাড়ি অথবা ভাড়া বাসায় থাকতে চান। সেক্ষেত্রে সরকার থেকে একজন মন্ত্রী মাসিক ৮০ হাজার টাকা করে ভাড়া পাবেন। আর প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী পাবেন মাসিক ৭০ হাজার টাকা। 

সরকারি বাড়ি সাজসজ্জা করতে একজন মন্ত্রী প্রতিবছর পাঁচ লাখ টাকা এবং প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা পাবেন ৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া নিজ বাড়ি বা ভাড়া বাড়িতে বসবাস করলে সেটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বছরে তিন মাসের বাড়ি ভাড়ার সমপরিমাণ টাকা পাবেন তারা।

অন্যদিকে এমপিরাও সরকারের কাছ থেকে প্লট পেয়ে থাকেন। বাসায় টেলিফোন ভাতা বাবদ প্রতি মাসে ৭ হাজার ৮০০ টাকা দেওয়া হয় একজন এমপিকে। প্রতি মাসে লন্ড্রি ভাতা দেড় হাজার টাকা, মাসিক ক্রোকারিজ, টয়লেট্রিজ কেনার জন্য ভাতা ৬ হাজার টাকা দেওয়া হয় একজন সংসদ সদস্যকে। এ ছাড়া নির্বাচনি এলাকায় অফিস খরচের জন্য প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা পান।

দায়িত্ব পাওয়ার পর মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা সরকারি খরচে একটি করে গাড়ি সুবিধা পান। আর সংসদ সদস্য হওয়ার পর শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি সুবিধা পেয়ে থাকেন তারা।

পরিবহণ ভাতা বাবদ একজন সংসদ সদস্য মাসে ৭০ হাজার টাকা পান। এ ছাড়া তার নির্বাচনি এলাকার যাওয়া–আসার ভাতা হিসেবে প্রতি মাসে পান ১২ হাজার ৫০০ টাকা। জ্বালানি বাবদ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী দৈনিক ১৮ লিটার জ্বালানি তেলের সমপরিমাণ টাকা পান।

আপ্যায়ন ভাতা বাবদ একজন মন্ত্রী মাসে ১০ হাজার টাকা পান। প্রতিমন্ত্রী সাড়ে ৭ হাজার টাকা এবং উপমন্ত্রী ৫ হাজার টাকা পান। আর একজন সংসদ সদস্য প্রতি মাসে আপ্যায়ন ভাতা পান পাঁচ হাজার টাকা।

মন্ত্রিসভার সদস্যরা অসুস্থ হলে তার পুরো চিকিৎসা খরচ বহন করে সরকার। আর একজন প্রথম শ্রেণির সরকারি কর্মকর্তা যে চিকিৎসা খরচ পেয়ে থাকেন, একজন সংসদ সদস্য এবং তার পরিবার সমান খরচ পান। 

নিজ এলাকার মসজিদ-মন্দির উন্নয়নসহ এলাকার মানুষের দাতব্য কাজে একজন মন্ত্রী বছরে পান ১০ লাখ টাকা। আর প্রতিমন্ত্রী পান সাড়ে ৭ লাখ ও উপমন্ত্রী পান ৫ লাখ টাকা। এ ছাড়া একজন সংসদ সদস্য বছরে পান ৫ লাখ টাকা। এগুলো ছাড়াও আরও নানা সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন তারা।