ঢাকা , বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোনো নির্বাচনই বিতর্কের ঊর্ধ্বে নয়, তবে তুলনামূলক ভালো হয়েছে : সিইসি 

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৬:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪
  • 25

সিনিয়র রিপোর্টার : প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ‘স্বাধীনতার পর থেকে কোনো নির্বাচনই বির্তকের ঊর্ধ্বে নয়। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনও নয়। তবে তা তুলনামূলক ভালো হয়েছে, সব দল অংশ নিলে আরও গ্রহণযোগ্য হত। এ নির্বাচন নিয়ে আমরা যে সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি-তাও কিন্তু বিতর্কের ঊর্ধ্বে নয়।’

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) নির্বাচন কমিশন ভবনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠ ও সফলভাবে সম্পন্ন করায় ধন্যবাদজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সিইসি কাজী হাবিবুল বলেন, ‘দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিতর্কের ঝড়ে পড়ে গিয়েছিলাম। সুনাম খুব একটা শুনিনি, দুর্নামটাই বেশি শুনেছি। তবে ত্রিমুখী চাপের মুখে জাতীয় নির্বাচনের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করা অনেকটা কঠিন ছিল।সদ্য সমাপ্ত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন খুব একটা অংশগ্রহণমূলক না হলেও, তুলনামূলকভাবে ভালো হয়েছে। সকলের সমন্বিত প্রয়াসে নির্বাচনটাকে উঠিয়ে আনা হয়েছে।’ 

‘নির্বাচন হয়ে গেলেও রাজনৈতিক সংকট কাটেনি’ উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘এই নির্বাচন খুব একটা অংশগ্রহণমূলক হয়েছে-তা কিন্তু নয়। একটি বড় দল নির্বাচন শুধু বর্জন করেনি, প্রতিহতও করতে চেয়েছিল। এমন সংকটে দেশ সুস্থিরভাবে এগুতে পারে না। নির্বাচন নিয়ে প্রতি পাঁচ বছর পরপর সংকট তৈরি হলে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে।’  

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আনিছুর রহমান বলেন, এবার প্রথমবারের মতো প্রতি আসনে একটি করে গঠিত নির্বাচনি তদন্ত কমিটি বড়-ছোট বিবেচনার ঊর্ধ্বে থেকে কাজ করেছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটেরাও ভালো কাজ করেছেন। ইসি সচিব অত্যন্ত দক্ষ একজন কর্মকর্তা। কোনো বড় দপ্তরে হয়তো উনি যাবেন, এমন একটি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর বলেন, যেদিন আমরা শপথ নিয়েছিলাম, সেদিন থেকেই এই কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে। দল নিবন্ধন, ভোটার তালিকা আসন বিন্যাস, ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা, সংলাপ ও পর্যবেক্ষক নিবন্ধন সফলভাবে করতে পেরেছে ইসি সচিবালয়। সরকারসহ সবার সহযোগিতার জন্য নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। বড় বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে আসলে এই নির্বাচন আরও গ্রহণযোগ্য হতো। কোনো দলের নির্বাচনে না আসা কমিশনের ব্যর্থতা নয়। কোনো রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে নিয়ে আসার দায়িত্ব কমিশনের নয়।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) বেগম রাশেদা সুলতানা বলেন, আমরা একটা ভালো নির্বাচন করতে চেয়েছিলাম। না করতে পারলে হয়তো আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিতাম। আমাদের সরকার সহায়তা দিয়েছে। না হলে একসুরে একভাবে কাজ করা সম্ভব হতো না। আশা করি, মান সম্মানের সঙ্গে চলে যেতে পারব।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আহসান হাবিব খান বলেন, ঈমানের সঙ্গে কাজ করে সফল হয়েছি। যে স্ট্যান্ডার্ডে পৌঁছেছি, সে স্ট্যান্ডার্ড থেকে নামতে পারবে না। আমরা দেখিয়ে দেব, কীভাবে এই কমিশন করে, যা ভবিষ্যতের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কমিশন সচিবালয়ের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী।

গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে ২২৩টি আসনে জয় পেয়ে সরকার গঠন করেছে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ১১ আসন। রেকর্ড ৬২টি আসনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন : অপরাধী হলে আজিজ-বেনজীরের বিচার হবে

কোনো নির্বাচনই বিতর্কের ঊর্ধ্বে নয়, তবে তুলনামূলক ভালো হয়েছে : সিইসি 

আপডেট সময় ০৬:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২৪

সিনিয়র রিপোর্টার : প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ‘স্বাধীনতার পর থেকে কোনো নির্বাচনই বির্তকের ঊর্ধ্বে নয়। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনও নয়। তবে তা তুলনামূলক ভালো হয়েছে, সব দল অংশ নিলে আরও গ্রহণযোগ্য হত। এ নির্বাচন নিয়ে আমরা যে সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি-তাও কিন্তু বিতর্কের ঊর্ধ্বে নয়।’

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) নির্বাচন কমিশন ভবনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠ ও সফলভাবে সম্পন্ন করায় ধন্যবাদজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সিইসি কাজী হাবিবুল বলেন, ‘দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিতর্কের ঝড়ে পড়ে গিয়েছিলাম। সুনাম খুব একটা শুনিনি, দুর্নামটাই বেশি শুনেছি। তবে ত্রিমুখী চাপের মুখে জাতীয় নির্বাচনের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করা অনেকটা কঠিন ছিল।সদ্য সমাপ্ত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন খুব একটা অংশগ্রহণমূলক না হলেও, তুলনামূলকভাবে ভালো হয়েছে। সকলের সমন্বিত প্রয়াসে নির্বাচনটাকে উঠিয়ে আনা হয়েছে।’ 

‘নির্বাচন হয়ে গেলেও রাজনৈতিক সংকট কাটেনি’ উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘এই নির্বাচন খুব একটা অংশগ্রহণমূলক হয়েছে-তা কিন্তু নয়। একটি বড় দল নির্বাচন শুধু বর্জন করেনি, প্রতিহতও করতে চেয়েছিল। এমন সংকটে দেশ সুস্থিরভাবে এগুতে পারে না। নির্বাচন নিয়ে প্রতি পাঁচ বছর পরপর সংকট তৈরি হলে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে।’  

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আনিছুর রহমান বলেন, এবার প্রথমবারের মতো প্রতি আসনে একটি করে গঠিত নির্বাচনি তদন্ত কমিটি বড়-ছোট বিবেচনার ঊর্ধ্বে থেকে কাজ করেছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটেরাও ভালো কাজ করেছেন। ইসি সচিব অত্যন্ত দক্ষ একজন কর্মকর্তা। কোনো বড় দপ্তরে হয়তো উনি যাবেন, এমন একটি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর বলেন, যেদিন আমরা শপথ নিয়েছিলাম, সেদিন থেকেই এই কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে। দল নিবন্ধন, ভোটার তালিকা আসন বিন্যাস, ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা, সংলাপ ও পর্যবেক্ষক নিবন্ধন সফলভাবে করতে পেরেছে ইসি সচিবালয়। সরকারসহ সবার সহযোগিতার জন্য নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে। বড় বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে আসলে এই নির্বাচন আরও গ্রহণযোগ্য হতো। কোনো দলের নির্বাচনে না আসা কমিশনের ব্যর্থতা নয়। কোনো রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে নিয়ে আসার দায়িত্ব কমিশনের নয়।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) বেগম রাশেদা সুলতানা বলেন, আমরা একটা ভালো নির্বাচন করতে চেয়েছিলাম। না করতে পারলে হয়তো আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিতাম। আমাদের সরকার সহায়তা দিয়েছে। না হলে একসুরে একভাবে কাজ করা সম্ভব হতো না। আশা করি, মান সম্মানের সঙ্গে চলে যেতে পারব।

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আহসান হাবিব খান বলেন, ঈমানের সঙ্গে কাজ করে সফল হয়েছি। যে স্ট্যান্ডার্ডে পৌঁছেছি, সে স্ট্যান্ডার্ড থেকে নামতে পারবে না। আমরা দেখিয়ে দেব, কীভাবে এই কমিশন করে, যা ভবিষ্যতের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কমিশন সচিবালয়ের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী।

গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে ২২৩টি আসনে জয় পেয়ে সরকার গঠন করেছে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ১১ আসন। রেকর্ড ৬২টি আসনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।