ঢাকা , শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করায় দেশে দ্রুত উন্নয়ন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৪:৩৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুলাই ২০২৩
  • 81

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে পরিকল্পিতভাবে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করেছে এজন্য দেশের সার্বিক উন্নয়ন দ্রুত হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় এসেছে, সব সময়ই আমরা চেষ্টা করেছি জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে, নিজেদের ভাগ্যের না। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি, যে কারণে একটা তাড়া আছে আমাদের। কারণ সময় তো ফুরিয়ে যায়, কিন্তু আমরা কতটুকু এগুতে পারলাম, সেই সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলাই সবচেয়ে বড় কথা।

‘সেই সঙ্গে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা, আজ আমরা বলতে পারি, বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার উপযুক্ত বাংলাদেশ গড়ে উঠেছে। সেটা আমরা করতে পেরেছি সুপরিকল্পিত পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে পেরেছি বলেই।’

বুধবার (১৯ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর এবং এপিএ ও শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে আমরা সরকার গঠন করার পর থেকে ২০২৩ পর্যন্ত বিভিন্ন সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও সুষ্ঠু দিক নির্দেশনা নিয়ে যে কাজ করে গেছি, যারা এই কাজে সহযোগিতা করেছেন এবং বাস্তবায়ন করেছেন, তাদের ধন্যবাদ জানাই।

তিনি বলেন, এত অল্প সময়ের মধ্যে আমরা যে দেশের একটা বিশাল পরিবর্তন আনতে পেরেছি, তার জন্য আপনাদেরই অনেক অবদান রয়েছে।

সরকারপ্রধান বলেন, সবার সঙ্গে যাতে যোগাযোগ থাকে, সুষ্ঠু পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ হয়, সেই চিন্তা থেকেই কিন্তু আমরা এই পদ্ধতিটা নিয়েছি। আমার কাছে সব সময়ই একটা বিষয় ছিল যে, কত দ্রুত বাংলাদেশের উন্নতিটা করা যেতে পারে। আপনাদের অনেক পরিশ্রম করিয়েছি এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু তার ফসলটা তো বাংলাদেশ পাচ্ছে। আপনারাও আজকে বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলতে পারছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে অতি দ্রুত দেশকে এগিয়ে নিয়ে যান। ১২৬টি দেশের স্বীকৃতি তিনি আদায় করে দিয়ে গিয়েছিলেন। ৭৫ সালে ৯ ভাগ পর্যন্ত আমাদের প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়। কিন্তু এরপরই মিলিটারি ডিকটেটর, প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ দেশ শাসন, ভোটের অধিকার হরণ করায় বহু বছর আমাদের জীবন থেকে হারিয়ে গিয়েছিল। প্রথমে ২১ বছর এরপর আরও ৮ বছর বলতে গেলে ২৯টা বছরই বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সরকার গঠন করে লক্ষ্য স্থির করেছিলাম যে, বাংলাদেশকে ২০২১ সালে একটা ধাপে তুলে নিয়ে আসব। সুষ্ঠু পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেই কিন্তু আমরা আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি, যেটা লক্ষ্য স্থির করেছিলাম, সেটা আমরা অর্জন করতে পেরেছি। আমি মনে করি যে, খুব কম দেশই তা করতে পারে, কারণ আমাদের ভৌগোলিক সীমাবদ্ধতা আছে, জনসংখ্যা অনেক বেশি। সেই জনসংখ্যার অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা-সব ব্যবস্থা করে উন্নয়নকে গতিতে নিয়ে যাওয়া, এটা কঠিন কাজ। কিন্তু প্রত্যেকেই আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছেন বলেই আমরা এই অর্জনটা করতে পেরেছি।

সরকারপ্রধান বলেন, যে চুক্তিটা আজ স্বাক্ষর করলাম, তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত যাতে যোগাযোগ থাকে, জবাবদিহিটা থাকে, তাহলে আমরা এখন যে লক্ষ্যটা স্থির করেছি, ২০৪১ সালে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ, সেটা করতে পারব। পাশাপাশি জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি), সেটা আমরা অর্জন করতে পারব বলে আমি বিশ্বাস করি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এগিয়ে যেতে হবে আরও। আমরা বলেছিলাম দেশটাকে একটা স্তরে উন্নীত করব, সেটা আমরা করতে পেরেছি, এখন আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা বাস্তবায়ন শুরু হবে ২০২৬ সাল থেকে, সেখানে আমাদের কিন্তু আরও কঠোরভাবে পরিশ্রম করতে হবে।

তিনি বলেন, সীমিত অর্থ দিয়েই কিন্তু আমরা এগিয়ে যেতে পেরেছি, ইচ্ছে থাকলে করা যায়, কাজ করলে যে ফল পাওয়া যায়, সেটা আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি। আমরা যেমন স্মার্ট বাংলাদেশ করতে চেয়েছি, সরকারও তেমনি স্মার্ট সরকার হবে। স্মার্ট জনগোষ্ঠী, স্মার্ট সোসাইটি, স্মার্ট ইকোনমি। দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলে, যাতে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবিলায় আমাদের জনগোষ্ঠী প্রস্তুত থাকে, সেভাবে কাজ করতে হবে। আবার বাংলাদেশকে যেন পিছিয়ে যেতে না হয়, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জনপ্রশাসন বিভাগের সচিব সত্যজিত কর্মকার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা ও শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান করেন।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল : সতর্কতায় উপকূলে মাইকিং করেছে কোস্ট গার্ডের সদস্যরা

পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করায় দেশে দ্রুত উন্নয়ন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৪:৩৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুলাই ২০২৩

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে পরিকল্পিতভাবে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করেছে এজন্য দেশের সার্বিক উন্নয়ন দ্রুত হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় এসেছে, সব সময়ই আমরা চেষ্টা করেছি জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে, নিজেদের ভাগ্যের না। সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি, যে কারণে একটা তাড়া আছে আমাদের। কারণ সময় তো ফুরিয়ে যায়, কিন্তু আমরা কতটুকু এগুতে পারলাম, সেই সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলাই সবচেয়ে বড় কথা।

‘সেই সঙ্গে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা, আজ আমরা বলতে পারি, বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার উপযুক্ত বাংলাদেশ গড়ে উঠেছে। সেটা আমরা করতে পেরেছি সুপরিকল্পিত পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে পেরেছি বলেই।’

বুধবার (১৯ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর এবং এপিএ ও শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে আমরা সরকার গঠন করার পর থেকে ২০২৩ পর্যন্ত বিভিন্ন সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও সুষ্ঠু দিক নির্দেশনা নিয়ে যে কাজ করে গেছি, যারা এই কাজে সহযোগিতা করেছেন এবং বাস্তবায়ন করেছেন, তাদের ধন্যবাদ জানাই।

তিনি বলেন, এত অল্প সময়ের মধ্যে আমরা যে দেশের একটা বিশাল পরিবর্তন আনতে পেরেছি, তার জন্য আপনাদেরই অনেক অবদান রয়েছে।

সরকারপ্রধান বলেন, সবার সঙ্গে যাতে যোগাযোগ থাকে, সুষ্ঠু পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ হয়, সেই চিন্তা থেকেই কিন্তু আমরা এই পদ্ধতিটা নিয়েছি। আমার কাছে সব সময়ই একটা বিষয় ছিল যে, কত দ্রুত বাংলাদেশের উন্নতিটা করা যেতে পারে। আপনাদের অনেক পরিশ্রম করিয়েছি এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু তার ফসলটা তো বাংলাদেশ পাচ্ছে। আপনারাও আজকে বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলতে পারছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে অতি দ্রুত দেশকে এগিয়ে নিয়ে যান। ১২৬টি দেশের স্বীকৃতি তিনি আদায় করে দিয়ে গিয়েছিলেন। ৭৫ সালে ৯ ভাগ পর্যন্ত আমাদের প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়। কিন্তু এরপরই মিলিটারি ডিকটেটর, প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ দেশ শাসন, ভোটের অধিকার হরণ করায় বহু বছর আমাদের জীবন থেকে হারিয়ে গিয়েছিল। প্রথমে ২১ বছর এরপর আরও ৮ বছর বলতে গেলে ২৯টা বছরই বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সরকার গঠন করে লক্ষ্য স্থির করেছিলাম যে, বাংলাদেশকে ২০২১ সালে একটা ধাপে তুলে নিয়ে আসব। সুষ্ঠু পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেই কিন্তু আমরা আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি, যেটা লক্ষ্য স্থির করেছিলাম, সেটা আমরা অর্জন করতে পেরেছি। আমি মনে করি যে, খুব কম দেশই তা করতে পারে, কারণ আমাদের ভৌগোলিক সীমাবদ্ধতা আছে, জনসংখ্যা অনেক বেশি। সেই জনসংখ্যার অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা-সব ব্যবস্থা করে উন্নয়নকে গতিতে নিয়ে যাওয়া, এটা কঠিন কাজ। কিন্তু প্রত্যেকেই আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছেন বলেই আমরা এই অর্জনটা করতে পেরেছি।

সরকারপ্রধান বলেন, যে চুক্তিটা আজ স্বাক্ষর করলাম, তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত যাতে যোগাযোগ থাকে, জবাবদিহিটা থাকে, তাহলে আমরা এখন যে লক্ষ্যটা স্থির করেছি, ২০৪১ সালে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ, সেটা করতে পারব। পাশাপাশি জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি), সেটা আমরা অর্জন করতে পারব বলে আমি বিশ্বাস করি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এগিয়ে যেতে হবে আরও। আমরা বলেছিলাম দেশটাকে একটা স্তরে উন্নীত করব, সেটা আমরা করতে পেরেছি, এখন আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা বাস্তবায়ন শুরু হবে ২০২৬ সাল থেকে, সেখানে আমাদের কিন্তু আরও কঠোরভাবে পরিশ্রম করতে হবে।

তিনি বলেন, সীমিত অর্থ দিয়েই কিন্তু আমরা এগিয়ে যেতে পেরেছি, ইচ্ছে থাকলে করা যায়, কাজ করলে যে ফল পাওয়া যায়, সেটা আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি। আমরা যেমন স্মার্ট বাংলাদেশ করতে চেয়েছি, সরকারও তেমনি স্মার্ট সরকার হবে। স্মার্ট জনগোষ্ঠী, স্মার্ট সোসাইটি, স্মার্ট ইকোনমি। দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলে, যাতে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবিলায় আমাদের জনগোষ্ঠী প্রস্তুত থাকে, সেভাবে কাজ করতে হবে। আবার বাংলাদেশকে যেন পিছিয়ে যেতে না হয়, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জনপ্রশাসন বিভাগের সচিব সত্যজিত কর্মকার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা ও শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান করেন।