ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেয়ারবাজারে বড় দরপতন

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৫:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুলাই ২০২৩
  • 75

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার দেশের শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমার পাশাপাশি কমেছে সবকটি মূল্যসূচক। সেই সঙ্গে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ।

এদিন শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়ার মাধ্যমে। এতে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসই’র প্রধান সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে যায়। তবে প্রথম ঘণ্টার লেনদেন শেষ হতেই একের পর এক প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমতে থাকে। লেনদেনের সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে পতনের মাত্রা। ফলে সবকটি মূল্যসূচক কমেই দিনের লেনদেন শেষ হয়।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে সব খাত মিলে ৪৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৪২টির এবং ১৫৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে শেয়ারবাজারে দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখানো বিমা কোম্পানিগুলোও আজ দাম কমার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিমা খাতের মাত্র ৫টি কোম্পানি দাম বাড়ার তালিকায় নাম লেখাতে পেরেছে।

সবকটি খাতের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমায় দিনের লেনদেন শেষে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসই-এক্স ২৩ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৩৪২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ আগের দিনের তুলনায় ৪ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৭৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো ৩০টি কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় ২৪ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ১৭২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সবকটি মূল্যসূচক কমার পাশাপাশি ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণও কমেছে। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৭৪৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৯৪৭ কোটি ২ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ২০০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ফু-ওয়াং ফুডের শেয়ার। কোম্পানিটির ৩৯ কোটি ৯৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা জেমিনি সি ফুডের ২৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২৬ কোটি ২৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ।

এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- আরডি ফুড, সি পার্ল বিচ রিসোর্ট, এডিএন টেলিকম, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, লুব-রেফ বাংলাদেশ, ওরিয়ন ইনফিউশন এবং লিগ্যাসি ফুটওয়্যার।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই কমেছে ৩৯ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১৯৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৩টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮৭টির এবং ৭৩টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১৯ কোটি ২৮ লাখ টাকা।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

লোকসভা নির্বাচন-২০২৪ : ভোটের আগে বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দিলেন কর্ণাটকের সাবেক মন্ত্রী

শেয়ারবাজারে বড় দরপতন

আপডেট সময় ০৫:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুলাই ২০২৩

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার দেশের শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমার পাশাপাশি কমেছে সবকটি মূল্যসূচক। সেই সঙ্গে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ।

এদিন শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়ার মাধ্যমে। এতে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসই’র প্রধান সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে যায়। তবে প্রথম ঘণ্টার লেনদেন শেষ হতেই একের পর এক প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমতে থাকে। লেনদেনের সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে পতনের মাত্রা। ফলে সবকটি মূল্যসূচক কমেই দিনের লেনদেন শেষ হয়।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে সব খাত মিলে ৪৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৪২টির এবং ১৫৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে শেয়ারবাজারে দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখানো বিমা কোম্পানিগুলোও আজ দাম কমার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিমা খাতের মাত্র ৫টি কোম্পানি দাম বাড়ার তালিকায় নাম লেখাতে পেরেছে।

সবকটি খাতের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমায় দিনের লেনদেন শেষে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসই-এক্স ২৩ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৩৪২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ আগের দিনের তুলনায় ৪ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৭৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো ৩০টি কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় ২৪ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ১৭২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সবকটি মূল্যসূচক কমার পাশাপাশি ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণও কমেছে। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৭৪৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৯৪৭ কোটি ২ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ২০০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ফু-ওয়াং ফুডের শেয়ার। কোম্পানিটির ৩৯ কোটি ৯৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা জেমিনি সি ফুডের ২৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২৬ কোটি ২৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ।

এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- আরডি ফুড, সি পার্ল বিচ রিসোর্ট, এডিএন টেলিকম, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, লুব-রেফ বাংলাদেশ, ওরিয়ন ইনফিউশন এবং লিগ্যাসি ফুটওয়্যার।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই কমেছে ৩৯ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১৯৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৩টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮৭টির এবং ৭৩টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১৯ কোটি ২৮ লাখ টাকা।