ঢাকা , সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শনিবার থেকে ট্রেনে রুট ভেদে ভাড়া বাড়ছে ৭-৯ শতাংশ গুনতে হবে বাড়তি ভাড়া  

  • ডেস্ক :
  • আপডেট সময় ০৮:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মে ২০২৪
  • 75
অনলাইন ডেস্ক : শনিবার (৪ মে) থেকে রেলের ভাড়া বাড়ছে। রুট ভেদে ভাড়া বাড়ছে ৭-৯ শতাংশ। এছাড়া বাড়ছে কনটেইনার পরিবহন ভাড়াও। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রীরা।  জানা গেছে, কাল থেকে ১০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্বে ট্রেনে ভ্রমণের জন্য আসন কিনতে হবে রেয়াত সুবিধা ছাড়াই। গত বুধবার (২৪ এপ্রিল) থেকে শনিবারের আসন বিক্রি শুরু হয়েছে। কারণ ট্রেন ভ্রমণের ১০ দিন আগে অগ্রিম আসন বিক্রি করে থাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে। অতীতের নিয়ম অনুযায়ী, ১০১ থেকে ২৫০ কিলোমিটার ভ্রমণে ২০ শতাংশ, ২৫১ থেকে ৪০০ কিলোমিটার ভ্রমণে ২৫ শতাংশ এবং এর বেশি দূরত্বের জন্য ৩০ শতাংশ ছাড় পেতেন রেলের যাত্রীরা। সেই বিধান উঠে যাওয়ায় বর্তমানে গন্তব্যভেদে ২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত শোভন চেয়ারের টিকিটের দাম বেড়েছে। এসি চেয়ারের দাম সর্বোচ্চ ৩০০ এবং কেবিনের ভাড়া বেড়েছে ৪০০ টাকা পর্যন্ত।
রেলের মহাপরিচালক সরদার সাহাদাত আলী বলেন, ‘রেলের লোকসান কমাতে রেয়াতি সুবিধা প্রত্যাহার করা হয়েছে। অন্যথায় রেলসেবার মান উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। রেয়াতি সুবিধা দেওয়ার ফলে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাতে হচ্ছে। এই সুবিধা প্রত্যাহারের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধির চেষ্টা করা হচ্ছে। এটির প্রভাব সকল যাত্রীদের ওপর পড়বে।’   
ট্রেনের ভাড়া বাড়ায় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ট্রেনের এক যাত্রী বলেন, বর্তমানে সব কিছুর দাম বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে ট্রেনের ভাড়া বাড়ায় যাত্রীদের কষ্ট আরও বাড়বে। আবার এদিকে ট্রেনের টিকিট কালোবাজারিদের হাতে চলে যায়। সাধারণ যাত্রীরা টিকিট পায় না, বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক। 
ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

র‌্যাবকে যেসব নির্দেশনা দিলেন নতুন ডিজি

শনিবার থেকে ট্রেনে রুট ভেদে ভাড়া বাড়ছে ৭-৯ শতাংশ গুনতে হবে বাড়তি ভাড়া  

আপডেট সময় ০৮:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মে ২০২৪
অনলাইন ডেস্ক : শনিবার (৪ মে) থেকে রেলের ভাড়া বাড়ছে। রুট ভেদে ভাড়া বাড়ছে ৭-৯ শতাংশ। এছাড়া বাড়ছে কনটেইনার পরিবহন ভাড়াও। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রীরা।  জানা গেছে, কাল থেকে ১০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্বে ট্রেনে ভ্রমণের জন্য আসন কিনতে হবে রেয়াত সুবিধা ছাড়াই। গত বুধবার (২৪ এপ্রিল) থেকে শনিবারের আসন বিক্রি শুরু হয়েছে। কারণ ট্রেন ভ্রমণের ১০ দিন আগে অগ্রিম আসন বিক্রি করে থাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে। অতীতের নিয়ম অনুযায়ী, ১০১ থেকে ২৫০ কিলোমিটার ভ্রমণে ২০ শতাংশ, ২৫১ থেকে ৪০০ কিলোমিটার ভ্রমণে ২৫ শতাংশ এবং এর বেশি দূরত্বের জন্য ৩০ শতাংশ ছাড় পেতেন রেলের যাত্রীরা। সেই বিধান উঠে যাওয়ায় বর্তমানে গন্তব্যভেদে ২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত শোভন চেয়ারের টিকিটের দাম বেড়েছে। এসি চেয়ারের দাম সর্বোচ্চ ৩০০ এবং কেবিনের ভাড়া বেড়েছে ৪০০ টাকা পর্যন্ত।
রেলের মহাপরিচালক সরদার সাহাদাত আলী বলেন, ‘রেলের লোকসান কমাতে রেয়াতি সুবিধা প্রত্যাহার করা হয়েছে। অন্যথায় রেলসেবার মান উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। রেয়াতি সুবিধা দেওয়ার ফলে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাতে হচ্ছে। এই সুবিধা প্রত্যাহারের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধির চেষ্টা করা হচ্ছে। এটির প্রভাব সকল যাত্রীদের ওপর পড়বে।’   
ট্রেনের ভাড়া বাড়ায় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ট্রেনের এক যাত্রী বলেন, বর্তমানে সব কিছুর দাম বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে ট্রেনের ভাড়া বাড়ায় যাত্রীদের কষ্ট আরও বাড়বে। আবার এদিকে ট্রেনের টিকিট কালোবাজারিদের হাতে চলে যায়। সাধারণ যাত্রীরা টিকিট পায় না, বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক।